নিউজ ফাস্ট

এই মডেলকে একরাতের জন্য ৭৭ কোটির প্রস্তাব সালমানের!

কোমল, গ্ল্যামারাস সেক্স দৃশ্যই হোক বা বিতর্ক, সব সময়েই উত্তেজনার ও উত্তাপের পারদ চড়িয়ে রেখেছেন কিম কার্দাশিয়ান। পেজ থ্রি র শীর্ষে সব সময়ই রয়েছেন তিনি। আবার তিনি চলে এলেন চর্চায়।

কিম মানেই যৌনতা। কিম মানেই আগুনের গোলা। সেই কিম এবার তাঁর ভক্তদের জন্য বছরের শেষ দিনে একটি হাটে গরম খবর দিলেন।

সৌদির রাজপুত্র মুহাম্মদ বিন সালমান তাঁর সঙ্গে একরাত কাটাতে চেয়েছেন। আর কিমের এই মহামূল্যবান সময় থেকে তাঁকে একরাত দেওয়ার জন্য কিমকে বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৭৭ কোটি টাকা পারিশ্রমিক দেবেন বলেও জানান।

সম্প্রতি কিমের স্বামী একটি ট্যুইট শেয়ার করেছিলেন যে তাঁর বেশ কয়েক কোটির দেনা রয়েছে। সেই টুইট প্রিন্সের নজরে পড়তেই তিনি কিমের কাছে এই অফার পৌঁছে দেন।

কিম জানিয়েছেন তিনি এরকম অফার প্রায়শই পান। কিন্তু তা বলে টাকা ওড়ালেই তাঁকে পাওয়া যাবে না। তাঁর সঙ্গে রাত কাটাতে হলে সুন্দর মনও প্রয়োজন।




এরপর আমেরিকার এই ফেমাস সেলিব্রিটি তাঁর ভক্তদের মতামত জানতে চেয়েছেন কমেন্ট বক্সে। কিমের সিদ্ধান্তে সহমত প্রকাশ করলে আপনিও আপনার মত জানাতে পারেন সরাসরি এই বিখ্যাত মডেলকে।



দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাবার প্রাতরাশ বা সকালের নাশতা। সকালের নাস্তা হতে পারে জীবন-রক্ষাকারী। এটি বাদ দিলে হৃদরোগে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থাকে। চিকিৎসক এবং বেশ কয়েকটি আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা তাদের গবেষণায় এ ধরণের ফলাফল তুলে ধরেছেন।

ছয় হাজার পাঁচশো পঞ্চাশ জন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি, যাদের বয়স ৫০ থেকে ৭৫ বছর এবং তারা ১৯৮৮ সাল থেকে ১৯৯৪ সালের মধ্যে স্বাস্থ্য ও পুষ্টি বিষয়ক জাতীয় জরিপে অংশ নিয়েছিলেন, তাদের কাছ থেকে নেয়া নমুনা বিশ্লেষণ করেন এই চিকিৎসক ও গবেষক দল।

অংশগ্রহণকারীরা জানান কিভাবে তারা সাধারণত সকালের খাবারটি গ্রহণ করতেন। সামগ্রিকভাবে ৫% উত্তরদাতা বলেছেন, তারা কখনোই সকালের খাবারটি মাঝে মাঝে খান নি, প্রায় ১১% বলেছেন তাদের সকালে খাওয়ার হার একেবারে বিরল, এবং ২৫% জানান যে তারা অনিয়মিতভাবে প্রাতরাশ সেরেছেন।

গবেষকরা এরপর মৃত্যুর তথ্যগুলো বিশ্লেষণ করেন। ২০১১ সাল নাগাদ জরিপে অংশগ্রহণকারী ২৩১৮ জনের জীবনাবসান ঘটে।

গবেষকরা সকালের খাবার গ্রহণের হার এবং মৃত্যুহারের মাঝে যোগাযোগ কী তা জানতে তৎপর হন।

গবেষক দলের মিস্টার বাও এবং তার সহকর্মীরা আরও লিখেছেন, ‘প্রাতরাশ গ্রহণ এবং হৃদরোগের ঝুঁকির মধ্যে সম্পর্ক নির্ণয়ের ক্ষেত্রে একজন ব্যক্তির আর্থ-সামাজিক অবস্থান, বডি মাস ইনডেক্স এবং কার্ডিওভাসকুলার ঝুঁকির বিষয়গুলো বিবেচনায় নেয়া হয়েছে।’


এই গবেষক-দল বলছে, তাদের জানা মতে এটাই সম্ভবত প্রাতরাশ বাদ দেয়া এবং কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ সম্পর্কিত মৃত্যুহার বিষয়ে প্রথম কার্যকর বিশ্লেষণ।

কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ- বিশেষ করে হৃদরোগ এবং স্ট্রোক হচ্ছে বিশ্বে মৃত্যুর সবচেয়ে প্রধান কারণ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুসারে কেবল ২০১৬ সালে এই কারণে বিশ্বে ১৫.২ মিলিয়ন মৃত্যু ঘটেছে।

No comments