নিউজ ফাস্ট

বিএসইসির নির্দেশনার পর ঘুরে দাঁড়াল শেয়ারবাজার


টানা দরপতনের অস্থিরতা রোধে মার্জিন ঋণের সুবিধা বাড়িয়ে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্দেশনা জারি এবং শেয়ারবাজারকে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে অর্থমন্ত্রীর বিভিন্ন দিক নির্দেশনার পর উত্থানে ফিরেছে। টানা আট কার্যদিবসে যে পরিমাণ সূচকের পতন হয়েছে সোমবার (২৩ মে) তার এক পঞ্চমাংশ ফিরেছে শেয়ারবাজারে।


সোমবার (২৩ মে) প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১১৮.৮৬ পয়েন্ট বা ১.৯৩ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ২৬১.৫৪ পয়েন্টে। ডিএসইর অপর সূচকগুলোর মধ্যে শরিয়াহ সূচক ১৫.২৬ পয়েন্ট বা ১.১২ শতাংশ এবং ডিএসই-৩০ সূচক ৩২.৫৮ পয়েন্ট বা ১.৪৩ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে যথাক্রমে এক হাজার ৩৭৬.৯৯ পয়েন্টে এবং দুই হাজার ৩০৯.৭৫ পয়েন্টে।


ডিএসইতে আজ টাকার পরিমাণে লেনদেন হয়েছে ৬৫৮ কোটি ৯৩ লাখ টাকার। যা আগের কার্যদিবস থেকে ২৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা কম। আগের কার্যদিবস লেনদেন হয়েছিল ৬৮২ কোটি ২১ লাখ টাকার।


ডিএসইতে আজ ৩৭৬টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৩৪৩টির বা ৯১.২২ শতাংশের শেয়ার ও ইউনিট দর বেড়েছে। দর কমেছে ১৯টির বা ৫.০৫ শতাংশের এবং ১৪টির বা ৩.৭২ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দর অপরিবর্তিত রয়েছে।


অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই এদিন ৩৩০.৫০ পয়েন্ট বা ১.৮২ শতাংশ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৪০৮.২২ পয়েন্টে। এদিন সিএসইতে হাত বদল হওয়া ২৭৪টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে শেয়ার দর বেড়েছে ২০৮টির, কমেছে ৪৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৯টির দর। আজ সিএসইতে ২৪ কোটি টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

কোন মন্তব্য নেই