নিউজ ফাস্ট

ব্রিক্স শীর্ষ বৈঠকের আলোচনায় শীর্ষে ছিল ইউক্রেন


ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন ও দক্ষিণ আফ্রিকা এই পাঁচটি দেশ যারা সমন্বিতভাবে ব্রিক্স বলে পরিচিত তারা বেইজিং আয়োজিত ভার্চুয়াল শীর্ষ বৈঠকে বৃহস্পতিবার তাদের উদ্বোধনী বক্তব্য রেখেছে। ইউক্রেন নামটি তেমনভাবে উল্লেখ করা হয়নি তবে পরোক্ষভাবে ইউক্রেনের প্রসঙ্গটি এসেছে।


চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং তার ভাষণে বলেন এই গোষ্ঠীটির উদ্দেশ্য হচ্ছে, এই পৃথিবীকে আরো স্থিতিশীল স্থান করে তোলা এবং সমতা ও ন্যায় বিচারের কথা বলা। তার পর তিনি পশ্চিমের দিকে অঙ্গুলি নির্দেশ করেন, যদিও যুক্তরাষ্ট্রের নাম উচ্চারণ করা হয়নি।


বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি সমৃদ্ধ রাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেন, আমাদেরকে শীতল যুদ্ধের সময়কার মানসিকতা ও বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যকার সংঘাত পরিহার করতে হবে। তিনি মস্কোর বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞার প্রতি ইঙ্গিত করে বলেন, আমাদেরকে একতরফা নিষেধাজ্ঞা ও নিষেধাজ্ঞার অপব্যবহারের বিরোধীতা করতে হবে।


ব্রিক্স হচ্ছে উদীয়মান অর্থনৈতিক জোট যারা নিজেদেরকে যুক্তরাষ্ট্র নেতৃত্বাধীন মুক্ত বিশ্বের বিকল্প হিসেবে দেখে। ব্রিক্সের সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে একমাত্র ব্রাজিল এ বছর আরো আগের দিকে ইউক্রেনে রাশিয়ার আক্রমণের বিরুদ্ধে ভোট দেয়। চীন, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা ভোটদানে বিরত ছিল।


মূল শীর্ষ বৈঠকের আগে ব্রিক্সের ব্যবসায়িক ফোরামে শির মন্তব্য তেমন দ্ব্যর্থবোধক ছিল না।

তিনি বলেন, প্রধান উন্নত রাষ্ট্রগুলোকে দায়িত্বশীল অর্থনৈতিক নীতিমালা গ্রহণ করতে হবে এবং এমন সব নেতিবাচক নীতি পরিহার করতে হবে যা উন্নয়নশীল দেশগুলোর ব্যাপক ক্ষতি সাধন করতে পারে। বার বার এটা প্রমাণিত হয়েছে যে নিষেধাজ্ঞা আরোপের ফল হয়েছে হিতে-বিপরীত।


অন্যরা উল্লেখ না করলেও শি সরাসরি ইউক্রেনের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, কোভিড-১৯ মহামারী এবং ইউক্রেন সঙ্কটের যৌথ প্রতিক্রিয়ায় বিশ্বের শিল্প ও সরবরাহ ধারাবাহিকতায় বিঘ্ন সৃষ্টি করেছে এবং উদীয়মান বাজার ও উন্নয়নশীল দেশগুলোকে আঘাত সহ্য করতে হচ্ছে।


এদিকে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বৃহস্পতিবার শি ও ‘আমাদের সকল চীনা বন্ধুকে ধন্যবাদ জানান’ এবং ‘কোনো কোনো রাষ্ট্রের স্বার্থপর কর্মকাণ্ডের’ সমালোচনা করেন এবং তার সরকারের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞার প্রসঙ্গ টেনে বলেন তারা বৈশ্বিক অর্থনীতিকে সঙ্কটের মুখে ফেলেছে।


এ দিকে ব্রিক্সের যৌথ ঘোষণাটি ছিল অস্পষ্ট যেখানে এ বিষয়ে বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরা হয়। ওই বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা ইউক্রেন পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেছি এবং আমাদের জাতীয় অবস্থানগুলো যা যথার্থ স্থানে যেমন জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদ এবং জাতিসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদে আমরা তুলে ধরেছি সেটাই স্মরণ করা যেতে পারে। আমরা রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে আলোচনা হোক সেটা সম্থন করি।


বিবৃতিতে আরো বলা হয় যে ওই অঞ্চলে জাতিসঙ্ঘের মানবিক সহযোগীতাকে ব্রিক্স সমর্থন করেছে।

সূত্র : ভয়েস অফ আমেরিকা


কোন মন্তব্য নেই