নিউজ ফাস্ট

থাইল্যান্ডে জরুরি অবস্থা জারি, গণজমায়েত নিষিদ্ধ




থাইল্যান্ডে বিক্ষোভ ঠেকাতে জরুরি অবস্থা জারি করেছে দেশটির সরকার। সেখানে গণজমায়েতও নিষিদ্ধ করা হয়েছে। টেলিভিশনে প্রচারিত এক ঘোষণায় পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ব্যাংককে অনেক লোকজনকে জড়ো করে, প্ররোচিত করে বেআইনিভাবে বিশাল জনসমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে। বিবিসি অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।


পুলিশের ঘোষণায় বলা হয়েছে, শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় রাখতে জরুরি অবস্থা জারির প্রয়োজন ছিল।


প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চান-ওচার পদত্যাগের দাবিতে গতকাল বুধবার হাজারো বিক্ষোভকারী রাজধানীতে জড়ো হয়। তারা একই সঙ্গে রাজার ক্ষমতা খর্ব করার দাবিও জানায়। 


বিদেশভ্রমণ শেষে থাই রাজা মহা ভাজিরালংকর্নের দেশে ফেরাকে কেন্দ্র করে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে উঠেছে থাইল্যান্ড।


রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের ঘোষণায় বলা হয়, বিক্ষোভকারীরা বিশৃঙ্খলা তৈরি করছে এবং জনগণের শান্তি নষ্ট করছে।


বুধবার রাজদম্পতি বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন। 


সেখানেই অবস্থান নেয় বিক্ষোভকারীরা। দেশটির পুলিশ বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দেয়।


জরুরি অবস্থা জারি করায় গণজমায়েত নিষিদ্ধের পাশাপাশি গণমাধ্যমের ওপরেও খবর প্রকাশে বিধিনিষেধ জারি হচ্ছে।

জাতীয় নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে এমন কোনো খবর প্রকাশ করতে পারবে না গণমাধ্যমগুলো।


বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, জরুরি অবস্থা জারির ফলে কর্তৃপক্ষ চাইলে সুনির্দিষ্ট কোনো এলাকায় মানুষের ঢোকা আটকাতে পারবে।


এই বিক্ষোভে নেতৃত্ব দিচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। গত জুলাই মাস থেকে এ বিক্ষোভ শুরু হয়।


 থাইল্যান্ডের রাজধানীতে সংগঠিত বিক্ষোভের মধ্যে গত সপ্তাহের বিক্ষোভ টিই ছিল সবচেয়ে বড়। গত শনিবারের ওই বিক্ষোভে ১৮ হাজার মানুষ যোগ দিয়েছিলেন বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে এ সংখ্যা আরও বেশি। এরপর থেকে বিক্ষোভ আরও ছড়িয়ে পড়ে। বিক্ষোভ থেকে রাজক্ষমতা পুনর্গঠনের দাবি জানানো হচ্ছে যা থাইল্যান্ডে স্পর্শকাতর ঘটনা বিষয় হিসেবে দেখা হয়। থাইল্যান্ডের আইন অনুযায়ী রাজতন্ত্রের সমালোচনার শাস্তিযোগ্য অপরাধ।


আজ বৃহস্পতিবার সকালে জরুরি অবস্থা কার্যকর হওয়ার পরপরই থাই দাঙ্গা পুলিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বাইরে থেকে বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দেয়।


রয়টার্স জানিয়েছে, কিছু প্রতিবাদকারী অস্থায়ী ব্যারিকেড ব্যবহার করে প্রতিরোধের চেষ্টা করেছিল, কিন্তু তাদের পিছু হটতে বাধ্য করেছে পুলিশ। প্রতিবাদকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যাওয়ার পরে কয়েকশ পুলিশকে রাস্তায় দেখা গেছে।


থাইল্যান্ডের মানবাধিকার সংস্থার আইনজীবীরা বলছেন, বিক্ষোভকারীদের তিনজন নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তবে পুলিশ এ বিষয়ে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি।



No comments