নিউজ ফাস্ট

চার বিমা কোম্পানির নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা


পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত চার বিমা কোম্পানি শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ২০ কোটি ৪৩ লাখ ২৭ হাজার ৫৪৩ টাকার নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করছে।। কোম্পানিগুলো হচ্ছে: সিটি জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, পিপল ইন্স্যুরেন্স, রুপালী ইন্স্যুরেন্স এবং পদ্মা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড। ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ সমাপ্ত অর্থবছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিগুলো। রোববার (২ মে) ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।


কোম্পানিগুলোর মধ্যে সিটি জেনারেল শেয়ারহোল্ডাদের ৬ কোটি ৮১ লাখ ৬৬ হাজার ১২২ টাকা, পিপলস ইন্স্যুরেন্সের ৪ কোটি ৬২ লাখ শেয়ারধারীদের ৫ কোটি ৮ লাখ ২০ হাজার টাকা, রুপালী ইন্স্যুরেন্স ৭ কোটি ৬৬ লাখ ৬৫ হাজার ৪১২ টাকা এবং পদ্মা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স ৭৭ লাখ ৭৬ হাজার টাকা শেয়ারধারীদের নগদ লভ্যাংশ হিসেবে দেবে।


ডিএসইর তথ্য মতে, ১৯৯০ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত পিপলস ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ সমাপ্ত বছরের জন্য নগদ ১১ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। সেই হিসেবে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের ৪ কোটি ৬২ লাখ শেয়ারধারীদের ১ টাকা ১০ পয়সা করে মোট ৫ কোটি ৮ লাখ ২০ টাকার টাকা লভ্যাংশ দেবে কোম্পানিটি। এর আগের বছর শেয়ারহোল্ডাদের ৮ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল পিপল ইন্স্যুরেন্স। অর্থাৎ আগের বছরের চেয়ে প্রতিটি শেয়ারে ৩০ পয়সা করে বেশি লভ্যাংশ দিচ্ছে।


ঘোষিত লভ্যাংশ শেয়াহোল্ডারদের সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভার (এমজিএম) দিন নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ২৯ জুন। ওইদিন বেলা সাড়ে ১১টায় এজিএম অনুষ্ঠিত হবে। তার জন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৩০ মে।


আলোচিত সময়ে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) দাঁড়িয়েছে ২ টাকা ২৬ পয়সা। এর আগের বছর ছিল ১ টাকা ৮৭ পয়সা। কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২৮ টাকা ৬০ পয়সা। এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২৭ টাকা ১৪ পয়সা।


১৯৯৫ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত রুপালী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিও সমাপ্ত ২০২০ বছরের জন্য ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। সেই হিসেবে ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে নগদ ১ টাকা করে মোট ৭ কোটি ৬৬ লাভ ৬৫ হাজার ৪১২ টাকা লভ্যাংশ শেয়ারহোল্ডারদের দেবে কোম্পানিটি। এর আগের বছরের ১০ শতাংশ করে লভ্যাংশ দিয়েছিল রুপালী ইন্স্যুরেন্স।


ঘোষিত লভ্যাংশ শেয়াহোল্ডারদের সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভার (এমজিএম) দিন নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ৩ আগস্ট। ওইদিন বেলা সাড়ে ১১টায় এজিএম অনুষ্ঠিত হবে। তার জন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ১০ জুন।


আলোচিত সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) দাঁড়িয়েছে ১ টাকা ৯০ পয়সা। এর আগের বছর ছিল ১ টাকা ৭৫ পয়সা। কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ২১ টাকা ৩০ পয়সা। এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ২১ টাকা ৬ পয়সা।


অন্যদিকে ২০০৭ সালে তালিকাভুক্ত সিটি জেনারেল ইন্স্যুরেন্সও শেয়ারহোল্ডাদের ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সে হিসেবে ৬ কোটি ৮১ লাখ ৬৬ হাজার ১২২ টাকার শেয়ারহোল্ডারদের নগদ দেবে কোম্পানিটি। এর আগের বছর শেয়ারহোল্ডারদের ৫ শতাংশ লভ্যাংশ দিয়েছিল। অর্থাৎ এবার দ্বিগুণ লভ্যাংশ দিচ্ছে সিটি জেনারেল ইন্স্যুরেন্স।


ঘোষিত লভ্যাংশ শেয়াহোল্ডারদের সর্বসম্মতিক্রমে অনুমোদনের জন্য কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভার (এমজিএম) দিন নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ৩০ জুন। ওইদিন বেলা ১১টায় এজিএম অনুষ্ঠিত হবে। তার জন্য রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ২৪ মে।


আলোচিত সময়ে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) দাঁড়িয়েছে ১ টাকা ৭৭ পয়সা। এর আগের বছর ছিল ১ টাকা ১ পয়সা। কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৬ টাকা ৮৮ পয়সা। এর আগের বছর একই সময়ে ছিল ১৫ টাকা ৬৮ পয়সা।


এছাড়া ২০১২ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত পদ্মা ইসলামী লাইফ শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ২ শতাংশ অন্তর্বর্তীকালীন নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। অর্থাৎ কোম্পানির ৩ কোটি ৮৮ লাখ ৮০ হাজার শেয়ারহোল্ডারদের ২০ পয়সা করে মোট ৭৭ লাখ ৭৬ হাজার টাকা নগদ লভ্যাংশ দেবে কোম্পানিটি। ৩১ মার্চ ২০২১ সালের প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে পরিচালনা পর্ষদ এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

কোন মন্তব্য নেই